Kamala Harris: ‘আমি আমেরিকার সেবা করতে প্রস্তুত’, বাইডেনের বয়স বিতর্কের মাঝে দাবি কমলার – Bengali News | I am ready to serve says US Vice President Kamala Harris amid ongoing issues on age of US President Joe Biden

0

কমলা হ্যারিস ও জো বাইডেন (ফাইল ছবি)Image Credit source: Facebook

ওয়াশিংটন: মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের বয়স নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন সে দেশের সাধারণ ভোটাররাই। এবছর মার্কিন মুলুকে ভোট রয়েছে। আরও একবার নিজেদের প্রেসিডেন্টকে বেছে নেবেন মার্কিন জনতা। সেখানে বছর একাশির বাইডেন যদি আবার আবার প্রেসিডেন্ট হন, তবে তাঁর কার্যকালের মেয়াদ থাকবে ৮৬ বছর বয়স পর্যন্ত। কিন্তু বাইডেন কি এত বয়সে দায়িত্ব সামলাতে পারবেন, তা নিয়ে চর্চা শুরু হয়েছে মার্কিন মুলুকেই। আর এসবের মধ্যেই আমেরিকার ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস জানিয়ে দিলেন, তিনি দায়িত্ব নিতে প্রস্তুত। সম্প্রতি ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে এক সাক্ষাৎকারে একথা জানিয়েছেন ভারতীয় বংশোদ্ভুত মার্কিন ভাইস প্রেডিসেন্ট।

বাইডেনের বয়স নিয়ে ভোটারদের উদ্বেগের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে হ্যারিসের স্পষ্ট উত্তর, ‘আমি দেশের সেবা করতে প্রস্তুত। এই নিয়ে কোনও প্রশ্নই ওঠে না।’ কমলা হ্যারিসের এই সাক্ষাৎকার অবশ্য মার্কিন স্পেশাল কাউন্সেলের রিপোর্টের আগেই নেওয়া হয়েছিল। স্পেশাল কাউন্সেল রিপোর্ট প্রকাশ্যে আসার দু’দিন আগেই সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়েছিল মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসের। সে সময়েই এই মন্তব্য করেন তিনি।

প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগেই মার্কিন স্পেশাল কাউন্সেল রবার্ট হুরের একটি রিপোর্ট প্রকাশ্যে এসেছে। সেখানে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বাইডেনের বয়স সংক্রান্ত বিষয়ে উল্লেখ রয়েছে। বাইডেনকে ‘বয়স্ক’ এবং ‘দুর্বল স্মৃতিশক্তি সম্পন্ন’ বলে ব্যাখ্যা করা হয়েছে মার্কিন স্পেশাল কাউন্সেলের রিপোর্টে। উল্লেখ্য, মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের হাতে প্রশাসনের গোপনীয় তথ্য নাড়াচাড়া সংক্রান্ত বিষয়টি খতিয়ে দেখছিল স্পেশাল কাউন্সেল। সেখানে বাইডেনের বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ আনা উচিত নয় বলেই রিপোর্টে জানানো হয়েছে। কারণ হিসেবে বাইডেনকে বলা হয়েছে, দুর্বল স্মৃতিশক্তি সম্পন্ন বয়স্ক ব্যক্তি হিসেবে।

যদিও রিপোর্টে এই দাবি পুরোপুরি উড়িয়ে দিয়েছে হোয়াইট হাউজ। হোয়াইট হাউজের পাল্টা যুক্তি, যেদিন বাইডেনের সঙ্গে রবার্ট হুর কথা বলেছিলেন, সেদিন ইজরায়েলে হামাস গোষ্ঠীর হামলার জেরে সাংঘাতিক কাজের চাপের মধ্যে ছিলেন বাইডেন। প্রসঙ্গত, মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসও এই স্পেশাল কাউন্সেল রিপোর্টকে নস্যাৎ করে দিয়েছেন এবং বাইডেনের পক্ষেই সওয়াল করেছেন। হ্যারিসের কথায় এই রিপোর্ট হল ‘রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।’

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may have missed